স্টাফ করেসপন্ডেন্ট।।ব্যাংকবীমা২৪.কম

সেপ্টেম্বর ১৭, ২০১৮

পাইপলাইন কাজের উদ্বোধন মঙ্গলবার

ভারত-বাংলাদেশ ফ্রেন্ডশিপ পাইপলাইনের নির্মাণকাজ উদ্বোধন করা হবে মঙ্গলবার (১৮ সেপ্টেম্বর)। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী যৌথভাবে এ নির্মাণকাজের উদ্বোধন করবেন।সোমবার (১৭ সেপ্টেম্বর) বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

বর্তমানে আমদানি করা তেল চট্টগ্রাম বন্দরে জাহাজ থেকে খালাস করে চট্টগ্রাম ডিপোতে সঞ্চয় করে রাখা হয়। পরে কোস্টাল ট্যাংকে করে খুলনার দৌলতপুর ডিপোতে আনা হয়। সেখানে আনলোড করে আবার রেলের ওয়াগনে আপলোড করে নিয়ে যাওয়া হয় পার্বতীপুরে। এই প্রক্রিয়ায় পরিবহনজনিত সমস্যা, অতিরিক্ত সময় এবং অর্থের অবচয় হয়। পাইনলাইনের মাধ্যমে তেল আনলে এই তিনটিরই সাশ্রয় হবে।

পাইপলাইনের মাধ্যমে ডিজেল আমদানি সংক্রান্ত ক্রয়-বিক্রয় চুক্তি গত বছরের ২২ অক্টোবর স্বাক্ষরের পরে গত ৯ এপ্রিল সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর করা হয়।এ পাইপলাইনের মাধ্যমে প্রথমে ২ দশমিক ৫ লাখ মেট্রিক টন ডিজেল সরবরাহ করা হবে প্রথম তিন বছর ধরে। পর্যায়ক্রমে এ সরবরাহের পরিমাণ বেড়ে শেষ পাঁচ বছরে ৪ লাখ মেট্রিক টনে উন্নীত করা হবে।

বাংলাদেশের চাহিদা অনুযায়ী ভবিষ্যতে প্রয়োজনে জ্বালানি তেলের আমদানি এই পাইপলাইনের মাধ্যমে আরও বাড়ানো সম্ভব হবে। নুমালীগড় রিফাইনারি পাইপলাইনের মাধ্যমে ১৫ বছরের জন্য ডিজেল সরবরাহ করবে। উভয়পক্ষের সম্মতিতে সময় বাড়ানো যাবে।

ভারতের শিলিগুড়ি থেকে বাংলাদেশের পার্বতীপুর পর্যন্ত প্রায় ১৩০ কিলোমিটার দীর্ঘ এই পাইপলাইন নির্মাণকাজ শেষ হলে ডিজেল বেচাকেনা চুক্তি কার্যকর হবে।

উল্লেখ্য, ২০১৬ সালের ১৯ মার্চ রেল ওয়াগনের মাধ্যমে ২ হাজার ২৬৮ মেট্রিক টন ডিজেল পার্বতীপুর ডিপোতে ভারতের নুমালীগড় রিফাইনারি থেকে অনুষ্ঠানিকভাবে গ্রহণ করা হয়। রেল ওয়াগনের মাধ্যমে ধারাবাহিকভাবে ২০১৮ সালের জুলাই পর্যন্ত প্রায় ৫৪ হাজার ৭০০ মেট্রিক টন ডিজেল আমদানি করা হয়েছে। আশা করা হচ্ছে, আগস্ট-ডিসেম্বর পর্যন্ত আরও প্রায় ৫০ হাজার মেট্রিক টন ডিজেল ভারত থেকে রেল ওয়াগনের মাধ্যমে আমদানি করা হবে।