স্টাফ করেসপন্ডেন্ট ।।ব্যাংকবীমা২৪.কম

মার্চ ১১, ২০১৮

মন তো খারাপ হবেই সঙ্গে যোগ হয় দুশ্চিন্তা

চুল পড়লে মন তো খারাপ হবেই সঙ্গে যোগ হয় দুশ্চিন্তা। তবে চুল পড়লেই আমরা অতি উদ্বিগ্ন হয়ে যাই, এটাও কিন্তু ঠিক নয়, কারণ স্বাভাবিকভাবে একটি চুল দুই থেকে চার বছর পর্যন্ত বাড়তে থাকে। এরপর বৃদ্ধি কমে যায় এবং কয়েক দিনের মধ্যে এমনিতেই পড়ে যায়। লক্ষ্য রাখুন দিনে ১০০টি পর্যন্ত চুল পড়লে চিন্তার কিছু নেই।

তবে যদি আরও বেশি চুল পড়ে, তখন যা করতে হবে:

ক্স ভিটামিন ই চুল পড়া রোধে ও নতুন চুল গজানোর ক্ষেত্রে খুবই কার্যকরী, তাই প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সমৃদ্ধ ফলমূল ও শাকসবজি খান।

ক্স চুলের ত্বকে অক্সিজেনের সরবরাহ বাড়িয়ে দেয় যা চুল বৃদ্ধিতে কার্যকর ভূমিকা পালন করে এবং শরীরের প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে এটি চুল পড়া রোধ করে ভিটামিন-ই।

ক্স নাশপাতি, বাদাম ও জলপাই তেলে প্রচুর ভিটামিন-ই থাকে। অন্যদিকে ভিটামিনের সর্বোৎকৃষ্ট প্রাকৃতিক উৎস হচ্ছে গম, শিম, ফুলকপি, বাঁধাকপি, সবজি, ডিম।

ক্স নিয়মিত চুল পরিষ্কার রাখুন, তিন মাস পর পর চুলের আগা ছেটে নিন
ক্স গরম পানি, ড্রায়ার বা এমন কিছু ব্যবহার করবেন না যা চুলে অতিরিক্ত চাপ পড়ে।

ক্স দিনে নিয়ম করে মাত্র ১০ মিনিট বরাদ্দ রাখুন চুল আঁচড়ানোর জন্য। এতে মাথায় রক্তসঞ্চালন বাড়বে। যা চুলের গ্রন্থিকোষের বৃদ্ধিতে সহায়তা করে।

ক্স অনেকেই আজকাল মাথায় তেল ব্যবহার করতে চাই না। তবে চুল মসৃণ, সুস্থ ও আকষর্ণীয় করতে অবশ্যই সপ্তাহে অন্তত দুইবার তেল ম্যাসাজ করতে হবে। এতে চুল পড়া বন্ধের পাশাপাশি চুলের পুষ্টি নিশ্চিত করে।

পর্যাপ্ত পানি পান, চিন্তামুক্ত থাকা, নিয়মিত ঘুম এগুলোও জরুরি চুল পড়া রোধে।